যত্নে রাখুন বই

লাইফস্টাইল ডেস্ক

  • প্রযুক্তি আর অনলাইনের যুগ যতই আসুক না কেন, বইয়ের আবেদন এখনও আগের মতোই আছে
  • বইয়ের ঠিকঠাক সংরক্ষণ আর যত্ন না করলে পছন্দের বইগুলো নষ্ট হয়ে যেতে পারে

বই মানুষের নিত্যসঙ্গী এবং অমূল্য সম্পদ। অবসরকে সুন্দরভাবে কাজে লাগানোর জন্য একটি বই সত্যিকার বন্ধুর মতো পাশে থাকে। প্রযুক্তি আর অনলাইনের যুগ যতই আসুক না কেন, বইয়ের আবেদন এখনও আগের মতোই আছে। সে কারণে মানুষ এখনও বই কেনেন; পড়েন।

আমরা বেশিরভাগই বই কিনে পড়া শেষ হলে সেটা আলমারি বা বই রাখার বুক শেলফে তুলে রাখি। কিন্তু শুধু বই তুলে রাখলেই বইয়ের যত্ন শেষ হয়ে যায় না। বইয়ের ঠিকঠাক সংরক্ষণ আর যত্ন না করলে পছন্দের বইগুলো নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

সেই বইকে পোকা কাটা, ধুলো জমা, ছিঁড়ে বা বর্ষায় নষ্ট হয়ে যাওয়া থেকে কীভাবে রক্ষা করবেন জেনে নিন।

ভালো মানের বুক শেলফ
বইয়ের যত্নের জন্য প্রথমেই দরকার ভালো একটি শেলফ বা বইয়ের তাক, যা সহজেই পরিষ্কার করা যায়। সবচেয়ে ভালো হয় যদি শেলফে কাচের দরজা থাকে। এতে করে বইয়ে ধুলোবালি কম পড়ে, আবার বইগুলো বাইরে থেকে দেখাও যায়।

বুক শেলফে তালা সিস্টেম করলে আরও ভালো। এতে করে কেউ জিজ্ঞেস না করে বই নিতে পারবে না আবার শিশুদের হাত থেকেও নিরাপদ থাকবে।

পোকামাকড় থেকে দূরে রাখুন
অনেক সময় দেখা যায় একটা বই পড়ার পর অনেকদিন ধরা হয় না। যার ফলে বইয়ে পোকা বসতি গেড়ে বইটাই নষ্ট করে দেয়। পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে বইকে সুরক্ষিত রাখতে প্রতিটি তাকে ন্যাপথলিন বল রেখে দিতে হবে এবং চিকন নিমপাতার ডাল বইয়ের পৃষ্ঠার মাঝে ঢুকিয়ে রাখতে হবে। এ ছাড়া শুকনো ল্যাভেন্ডারের ফুল দিয়ে ছোট ছোট পুটলি বানিয়ে শেলফের কোণায় রেখে দিতে পারেন। এ পদ্ধতিগুলো বইকে পোকার থেকে দূরে রাখবে।

নিয়মিত পরিষ্কার রাখুন
বই যতই বিক শেলফে যত্নে থাকুক না কেন, সেখানে পোকা কাটবেই বা ধুলোবালি পরবেই। তাই প্রিয় বই যেন নষ্ট না হয়, সে জন্য মাঝে মাঝে বইগুলোকে শেলফ থেকে নামিয়ে আস্তে আস্তে সেগুলো শুকনো কাপড় দিয়ে মুছে নিন। তারপর কিছুক্ষণ রোদে রাখার পর আবারো যত্ন করে তুলে রাখুন বইয়ের তাকে।

গুছিয়ে রাখুন
গাদাগাদি করে বই না রেখে, বিষয় অনুযায়ী বইয়ে লেবেল লাগিয়ে গুছিয়ে রাখুন। বুকশেলফে বই গোছানোর সময় উপন্যাসের বইগুলো আলাদা রাখুন, গল্পের বই আলাদা তাকে, প্রবন্ধ বইগুলো অন্য তাকে রাখুন। এতে করে সহজেই বই খুঁজে পাওয়া যাবে।

বুকমার্ক ব্যবহার করুন
বইয়ের পাতা কখনও ভাঁজ করে রাখবেন না। যে পাতাটি পড়ছিলেন সেখানে ফিরে যাওয়ার জন্য সমান্তরাল বুকমার্ক ব্যবহার করুন। বই পড়তে পড়তে উল্টো করে রেখে দেয়া বা মাঝে কলম অথবা পেনসিল গুঁজে রাখাটাও খারাপ। এতে পাতা আর স্পাইন দুটিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

প্রোটেকটিভ কভার ব্যবহার
বইয়ে ব্যবহারের জন্য প্রোটেকটিভ কভার কিনতে পাওয়া যায়, এতে করে বইয়ের ক্ষতি হয় না। হার্ড কভার বই বেশি দিন ভালো রাখতে চাইলে প্রোটেকটিভ কভার লাগিয়ে রাখতে পারেন। তাতে ধুলা-ময়লা ভেতরে ঢুকতে পারবে না। এতে করে বই বেশিদিন ভালোও থাকে।

খাবারদাবার থেকে দূরে রাখুন
খেতে খেতে বই পড়ার অভ্যাস অনেকের। এ সময় যদি বইয়ের পাতায় খাবার লেগে যায় তাহলে সেই দাগ কখনও মুছে যাবে না। এই সামান্য দাগেই পোকামাকড়, পিঁপড়ের উপদ্রব হতে পারে। এছাড়া বইয়ের পাশে খাবার জাতীয় কিছু রাখাও ঠিক নয়। এমনকি ভেজা হাতে বই স্পর্শ করাও উচিত নয় এতে বইয়ের অক্ষরগুলো ছড়িয়ে যেতে পারে কিংবা পৃষ্ঠা কুঁচকে যেতে পারে।

সোস্যাল নেটওয়ার্ক

সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত